বিকেলে সুস্থ লিটনকে ধরে নিয়ে যায় পুলিশ, রাতেই মৃত্যু!

ইমান২৪.কম: পটুয়াখালীর দশমিনা থানা পুলিশের হেফাজতে লিটন খাঁ নামে এক সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালকের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে স্থানীয় এক মাদ্রাসা সুপারের অভিযোগের ভিত্তিতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে থানায় আনা হয়। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে বিচার দাবি করেন নিহতের স্ত্রী।

এদিকে পুলিশ বলছে, বাথরুমে গিয়ে সে বিষপান করেছে। এদিকে লিটন গ্রেফতার হওয়া আসামি না হওয়ায় তার শরীর তল্লাশি করা হয়নি বলে দাবি পুলিশের। পটুয়াখালী জেলার দশমিনা থানার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে রোববার বিকেলের দিকে এ ঘটনা ঘটে।

লিটন খাঁ’র ভগ্নিপতি মোফিজুর রহমান জানান, রোববার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের কথা বলে লিটনকে থানায় নিয়ে যায়। খবর পেয়ে আমিও থানায় যাই। ওই মুহূর্তে লিটনকে অসুস্থ অবস্থায় পুলিশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাচ্ছিল।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে রাতে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১টার পর লিটন মারা যান। লিটনের স্ত্রী মাজেদা বেগম অভিযোগ করেন, তার স্বামীকে সুস্থ অবস্থায় ধরে নিয়ে যায় পুলিশ।

পরে লিটন অসুস্থ বলে খবর দেওয়া হয়। এ ঘটনার বিচার দাবি করেন তিনি। জানা গেছে, এর আগে জমি নিয়ে পাশের আকরাম খান সিনিয়র দাখিল মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের সাথে দীর্ঘদিন ধরে লিটনের বিরোধ চলছিল। থানা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিটনের বিরুদ্ধে পুকুরে বিষ ঢেলে মাছ নিধন এবং মাদ্রাসার জমিতে অবৈধভাবে ঘর নির্মাণের অভিযোগ করা হয়।

এদিকে দশমিনা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুস সালাম মোল্লা জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে লিটনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়। সে গ্রেফতারকৃত আসামি না হওয়ায় তার শরীর তল্লাশি না করে থানায় প্রবেশ করানো হয়।

বাথরুমে গিয়ে সে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। চিকিৎসক পুলিশকে জানিয়েছে লিটন বিষপান করেছেন। লিটনের মরদেহ সোমবার দুপুরে বরিশাল মর্গে পাঠানো হয় ও ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

ফেসবুকে লাইক দিন