অন্ধকার চরে আলোর মিছিল

ইমান২৪.কম: অন্ধকার চরে আলোর মিছিল। আলো জ্বালিয়েছে সৃষ্টির সেবা সংস্থা ও লাব্বাইক কাফেলা কুড়িগ্রাম এর সদস্য বৃন্দ।

এখন সেখানে আজান হয় এবং নিয়মিত জুমার নামাজ সহ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় হয়। একসময়ের অন্ধকারে নিমজ্জিত ব্যক্তিরা এখন আলোর দিশা পেয়েছে। দালালচক্রের দ্বারা গুগোলে উঠানো খ্রিস্টানের চর এখন কফিলের চর নামে খ্যাত!

হ্যাঁ আমরা কফিলের চরের কথা বলছি, যা স্থানীয় খ্রিস্টান (মুসলিম থেকে গোপনে খিষ্টান হওয়া ব্যক্তি) দ্বারা নিজেদের নামে উল্লেখিত চরকে সাজানোর চেষ্টা করেছে। আলহামদুলিল্লাহ ওলামায়ে কেরামের প্রচেষ্টায় এখন সেখানে মসজিদ মাদ্রাসা এবং ঈদগাহ মাঠ গড়ে উঠেছে।

আপনারা সকলেই জানেন, কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে এমন একটি চর আছে, যেখানে মসজিদ মাদ্রাসা স্কুল কিংবা মক্তব বলতে কিছুই ছিল না, শুধুমাত্র আরডিআরএস থেকে একটি বাড়িতে কিছু বাচ্চাকে পড়ানো হতো। কিন্তু আলহামদুলিল্লাহ সৃষ্টির সেবা সংস্থা কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠার পর এখন আর তাদের স্কুল চলে না।

খ্রিস্টান সম্প্রদায় এই চরকে বেছে নিয়েছিল নিজেদের ঘাঁটি হিসেবে। আপনারা গুগল ম্যাপে সার্চ দিলেই দেখতে পাবেন কিভাবে পুরো চরকে মন্দির পার্ক এবং গির্জার ছকে আঁকা হয়েছে, অথচ সরেজমিনে এখনো কিছুই পাবেন না!

আল্লাহ পাকের অশেষ মেহেরবানীতে সৃষ্টির সেবা সংস্থার অর্থায়নে লাব্বাইক কাফেলা কুড়িগ্রাম এর কর্মীগণ সেখানে একটি জামে মসজিদ মাদ্রাসা এবং ঈদগাহ মাঠ করার সুযোগ পেয়েছে। চরের সরেজমিন থেকে প্রায় আট ফুট উঁচু করে বালু ভরাট করা হয়েছে। ২০২০ সালের বন্যায় যা দ্বারা উপকৃত হয়েছে পুরো চরবাসী। যখন চতুর্দিক ডুবে গিয়েছে বন্যার পানিতে, চরের একটি বাড়িঘরও ভাসমান ছিল না, ঠিক সেই মুহূর্তে তারা মসজিদ এবং মাদ্রাসার দরজা খুলে দিয়েছে চরের বাসিন্দাদের জন্য। মহিলা পুরুষ ও গবাদিপশু সহ সকলেই আশ্রয়ে পেয়েছে তাদের এই প্রতিষ্ঠানে।

স্থানীয় লোকজন ১০০ শতক জমি দিয়েছে প্রতিষ্ঠান করার জন্য, এর মধ্য হতে মাত্র ১৬ শতক জায়গা ভরাট করা হয়েছে। আর্থিক সংকটের কারণে বাকি জমি ভরাট করার সুযোগ পায়নি এখনো। অবশিষ্ট জমি ভরাট করতে পারলে অবশ্যই সেখানকার লোকজন আরো ওলামায়ে কেরামের সাথে সম্পৃক্ত হওয়া এবং উপকৃত হওয়ার সুযোগ পাবে ইনশাআল্লাহ।

এরই মাঝে সৃষ্টির সেবা সংস্থার সকল সদস্য মাদ্রাসার কমিটি গঠনকরা ও একজন পঙ্গু অসহায় মেয়েকে তার চলাফেরার সুবিধার্থে একটি হুইল চেয়ার উপহার প্রদান করার উদ্দেশ্যে ঝটিকা সফর করেছে। এই সফরে লাব্বাইক কাফেলা কুড়িগ্রাম কর্তৃক আয়োজিত মরহুম নব মুসলিম সিরাজুল ইসলাম পরেশ ভাইয়ের রূহের মাগফিরাতের দোয়া মাহফিলে অংশগ্রহণ করেন সৃষ্টির সেবা সংস্থার সকল সদস্যবৃন্দ।

তাদের এই সফরের কার্যক্রম যথাক্রমে:-
১.মাদ্রাসার কমিটি গঠন
২.মাদ্রাসার বাচ্চাদের সকলের একই রকম পোশাক প্রদান
৩. চরের বাসিন্দাদের এক বেলা রান্না করে খাওয়ানো
৪. নব মুসলিম মরহুম সিরাজুল ইসলাম ভাইয়ের রুহের মাগফেরাতের জন্য দোয়া অনুষ্ঠান
৫. একজন পঙ্গু মেয়েকে হুইল চেয়ার উপহার প্রদান সহ নানান কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে ধর্মের ফেরিওয়ালা এই সংস্থা।

সংস্থার কাজ আরও বেগবান করার জন্য সকলের দোয়া ও সহযোগিতা এবং বুদ্ধি পরামর্শ খুবই প্রয়োজন। দেশবাসীর কাছে সংস্থার মুখপাত্র ও সংস্থার সদস্যগণ দোয়া এবং সহযোগিতার অনুরোধ জানিয়েছেন।

ফেসবুকে লাইক দিন