মোবাইল ফোনের জন্য হত্যা, জুতা দেখে খুনি শনাক্ত

ইমান২৪.কম: লক্ষীপূজা দেখে বাড়ি ফিরছিল বিকাশ চন্দ্র বর্মণ (১৬) নামে এক কিশোর। পথে মোবাইল ফোনের জন্য গলা কেটে হত্যা করা হয় তাকে। নিহতের লাশ তার বাড়ির ৫৫০ গজ দূরে একটি পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়। লাশের পাশে অন্য এক ব্যক্তির এক জোড়া জুতাও খুঁজে পায় পুলিশ।

মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) কুমিল্লা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আজিম-উল-আহসান। তবে উদ্ধার হওয়া জুতা খুনিকে গ্রেফতার করতে সহায়তা করেছে বলে জানান তিনি। গত ৩০ অক্টোবর মুরাদনগর উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে।

গ্রেফতার করা হয় শাকিব (২৪) নামে এক যুবককে। তিনি মুরাদনগর উপজেলার করিমপুর গ্রামের মো. হানিফ মিয়ার ছেলে। নিহত বিকাশ চন্দ্র বর্মণ কুমিল্লার মুরাদনগর সদর এলাকার জেলে পাড়ার প্রহলাদ চন্দ্র বর্মণের ছেলে। সে পেশায় দর্জি ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলন সূত্রে ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মুরাদনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নাহিদ আহম্মেদ জানান, গত ৩০ অক্টোবর বিকাশ চন্দ্র বর্মণ লক্ষীপূজা দেখতে ঘর থেকে বের হন। পূজা দেখে ফেরার পথে বৃষ্টি শুরু হয়। বাড়ির অদূরে একটি ছয়তলা দালানের পাশে আশ্রয় নেয় বিকাশ ও তার সঙ্গী উত্তম বর্মণ (২১), অজয় চন্দ্র সরকার (২২) ও আসামি শাকিব।

একটি পূজা মণ্ডপে একসাথে নাচ-গান করেছিল তারা। বৃষ্টি না থামায় বিকাশকে রেখে উত্তম বর্মণ ও অজয় চন্দ্র সরকার বৃষ্টিতে ভিজে বাড়ি চলে যায়। তার একটু পরে বিকাশও বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেয়। বিকাশের পিছু নেয় শাকিব। এক পর্যায়ে শাকিব বিকাশের পথরোধ করে। বিকাশের মোবাইল ফোনটি কেড়ে নিতে ধস্তাধস্তি শুরু করে।

শাকিব তার সাথে থাকা ছুরি দিয়ে বিকাশকে আঘাত করে। রক্তাক্ত অবস্থায় বিকাশ দৌড়ে বাড়ির কাছে চলে যায়। এ সময় শাকিবও দৌড়ে বিকাশের ঘাড়ে আঘাত করে। বিকাশ নিস্তেজ হয়ে পাশের পুকুরে পড়ে যায়। রাত তখন সাড়ে ৩টা। ঝুম বৃষ্টি। সে বাঁচার জন্য চিৎকার করলেও গভীর রাত আর বৃষ্টির শব্দে তার ডাক কারো কানে পৌঁছেনি।

শাকিব তাকে জবাই করে। তিন দফা হামলায় বিকাশের মৃত্যু নিশ্চিত করে ১০ হাজার টাকার কম মূল্যের মোবাইল ফোনটি নিয়ে চলে যায় সাকিব। এ সময় সাকিব তার পায়ের জুতাগুলো রেখে চলে যায়। এ ঘটনায় ২ নভেম্বর অজ্ঞাত আসামি করে মুরাদনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের বাবা প্রহলাদ চন্দ্র বর্মণ।

পরে পুলিশ তদন্ত শুরু করে। লাশের সাথে উদ্ধার হওয়া জুতার মালিককের সন্ধান করতে থাকে। পুলিশ কর্মকর্তা নাহিদ আহম্মেদ জানান, উদ্ধার হওয়া জুতা ও মোবাইল ফোনের কললিস্ট ধরে তদন্ত শুরু করা হয়। চট্টগ্রামের বাকলিয়া এলাকা থেকে সোমবার রাতে শাকিবকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হওয়ার পর সাকিব স্বীকারোক্তি দেয়, লাশের পাশে উদ্ধার হওয়া জুতা জোড়া তার। সে পেশায় কখনো সিএনজি অটোরিকশা চালক,কখনো ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালক।

ফেসবুকে লাইক দিন