ভাগ্নিকে অনেকদিন ধরেই ধর্ষণ করছিলেন খালু

ইমান২৪.কম: ময়মনসিংহের গৌরীপুরে আপন খালুর বিরুদ্ধে কিশোরীকে (১৫) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর অভিযুক্ত সোহাগ মিয়া (৩৪) এখন কারাগারে।

গ্রেফতার সোহাগ মিয়া উপজেলার অচিন্তপুর ইউনিয়নের ফুলবাড়িয়া গ্রামের আজিজুল হকের ছেলে। ঘটনাটি ঘটে উপজেলার অচিন্তপুর ইউনিয়নের ফুলবাড়িয়া গ্রামে।

মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) সকালে উপজেলার অচিন্তপুর ইউনিয়নের ফুলবাড়িয়া গ্রাম থেকে থেকে সোহাগ মিয়াকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এর আগে সোমবার (৯ নভেম্বর) রাতে ওই মেয়ের মা বাদী হয়ে সোহাগ মিয়াকে আসামি করে গৌরীপুর থানায় মামলা করেন।

পুলিশ জানায়, দুই বছর আগে সোহাগ মিয়া তার নিজের সন্তানদের দেখাশোনা করার জন্য স্ত্রীর আপন বড় বোনের ওই মেয়েটিকে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন।

চলতি বছরের অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহ থেকে সোহাগ মিয়া ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে আসছেন। সম্প্রতি ওই কিশোরী তার মায়ের বাড়িতে যাওয়া বন্ধ করে দেয়।

কেন মায়ের বাড়িতে যাওয়া বন্ধ করেছে- বিষয়টি জানতে সোহাগ মিয়ার বাড়িতে যায় কিশোরীর মা। পরে সোহাগ মিয়ার বাড়িতে গিয়ে জানতে পারেন, তার কিশোরী মেয়ে তার খালুর দ্বারা ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

পরে ওই কিশোরীর মা গৌরীপুর থানায় মামলা করেন। এ বিষয়ে গৌরীপুর থানার ওসি বোরহান উদ্দিন বলেন, আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতের নির্দেশে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

ওই কিশোরীকে ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ফেসবুকে লাইক দিন