আজ যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন: জরিপে জানা গেল ফলাফল

ইমান২৪.কম: বর্তমান প্রেসিডেন্ট রিপাবলিকান ডোনাল্ড ট্রাম্প আবার ক্ষমতায় ফিরবেন, নাকি ডেমোক্র্যাট জো বাইডেন হবেন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬ তম প্রেসিডেন্ট—তা নিয়ে বিশ্বব্যাপী চলছে জোর আলোচনা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন মানেই হাতি ও গাধার দ্বন্দ্ব। সরাসরি হাতি ও গাধাকে যুদ্ধে না নামিয়ে দিলেও এই দুই মার্কা নিয়ে যুদ্ধে নামে যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেট পার্টি।

রিপাবলিকান পার্টির প্রতীক হাতি আর ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রতীক গাধা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মোটাদাগে দুটিই রাজনৈতিক দল৷ রিপাবলিকান এবং ডেমোক্র্যাট৷ বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একজন রিপাবলিকান। এই দলটিকে সেদেশে ‘গ্র্যান্ড ওল্ড পার্টি’ বলেও ডাকা হয়। রিপাবলিকানরা আদতে একটি রক্ষণশীল রাজনৈতিক দল। সাথে সাথে যুদ্ধবাজ ও উগ্রতায়ও তারা ডেমোক্রেটদের থেকে একটু আগানো। ট্রাম্পের রিপাবলিকান পার্টি, করের হার কমানো, বন্দুক রাখার অধিকার এবং অভিবাসনের উপর কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের পক্ষে।

অপরদিকে জো বাইডেন হলেন ডেমোক্র্যাটদের পক্ষের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী। ডেমোক্র্যাট দলটি নিজ দেশের ক্ষেত্রে কিছুটা উদারপন্থী মনোভাবের জন্য পরিচিত। নাগরিক অধিকার, অভিবাসন, এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মতো বিষয়ে তাদের উদারপন্থার জন্যে দলটি পরিচিত। ঐতিহাসিকভাবে দেখা গিয়েছে যে, আমেরিকার শহরাঞ্চলে ডেমোক্র্যাটদের সমর্থন তুলনামূলক ভাবে বেশি। তবে অশিক্ষিত এবং কট্টর মনোভাবের আমেরিকানদের কাছে রিপাবলিকানের সমর্থন কিছুটা বেশি।

এদিকে বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই নির্বাচনকে ঘিরে পৃথক জরিপ চালিয়েছে বিশ্বের কয়েকটি প্রভাবশালী গণমাধ্যম। জরিপে জানা যায়, ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন। বেশ কয়েকটি জরিপ বলছে, এবার জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হতে চলেছেন। এনবিসি নিউজ-ওয়ালস্ট্রিট জার্নালের জরিপ বলছে, ট্রাম্পের চেয়ে ১০ পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন।

ভোটের মাত্র একদিন আগে স্থানীয় সময় রোববার এ জরিপের ফল প্রকাশ করে এনবিসি ও ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল। খবর সিনহুয়ার। এনবিসি নিউজ এবং ওয়ালস্ট্রিট জার্নালের জরিপে দেখা যায়, দেশের নিবন্ধিত ভোটারদের মধ্যে ৫২ শতাংশ বাইডেনকে এবং ৪২ শতাংশ ভোটার ট্রাম্পকে সমর্থন করে। ২৯ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত এই জরিপ চালানো হয়। এতে দেখা যায়, কৃষ্ণাঙ্গ, তরুণ, সিনিয়র নাগরিক, নারী, কলেজ ডিগ্রিধারী শ্বেতাঙ্গ এবং স্বতন্ত্র ভোটারের ক্ষেত্রে বাইডেন ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। কৃষ্ণাঙ্গ ভোটারদের মধ্যে ৮৭ শতাংশ বাইডেনকে এবং মাত্র পাঁচ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন করে।

১৮ থেকে ৩৪ বছর বয়সের তরুণ ভোটারদের মধ্যে ৬০ শতাংশ বাইডেনকে এবং ৩২ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন করে। সিনিয়র ভোটারদের মধ্যে ৫৮ শতাংশ বাইডেনকে এবং ৩৫ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন করে। নারী ভোটারদের মধ্যে ৫৭ শতাংশ বাইডেনকে এবং ৩৭ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন দেওয়ার কথা জানায়। কলেজ ডিগ্রিধারী শ্বেতাঙ্গ ভোটারদের মধ্যে ৫৬ শতাংশ বাইডেনকে এবং ৪১ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন করে।

স্বতন্ত্র ভোটারদের মধ্যে ৫১ শতাংশ বাইডেনকে এবং ৩৬ শতাংশ ট্রাম্পকে সমর্থন দেয়। নির্বাচনপূর্ব এই চূড়ান্ত জরিপে আরো দেখা যায়, ব্যাটলগ্রাউন্ডখ্যাত ১২টি সুইং স্টেটে ট্রাম্পের চেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন বাইডেন। বাইডেন ছয় পয়েন্ট এগিয়ে রয়েছেন ট্রাম্পের চেয়ে। অঙ্গরাজ্যগুলো হচ্ছে- অ্যারিজোনা, ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, আইওয়া, মইন, মিশিগান, মিনেসোটা, নর্থ ক্যারোলিনা, নিউ হাম্পশ্যায়ার, নেভাদা, পেনসিলভানিয়া ও উইসকনসিন।

এসব রাজ্যের ৫১ শতাংশ ভোটার বাইডেনকে এবং ৪৫ শতাংশ ভোটার ট্রাম্পকে সমর্থন দেওয়ার কথা জানায়। এদিকে ট্রাম্প কেবল শ্বেতাঙ্গ ভোটারদের সমর্থনের ক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছেন। শ্বেতাঙ্গ ভোটারদের মধ্যে ৫১ শতাংশ ট্রাম্পকে এবং ৪১ শতাংশ বাইডেনকে সমর্থন করে। কলেজ ডিগ্রি ছাড়া শ্বেতাঙ্গ ভোটারদের মধ্যে ৫৮ শতাংশ ট্রাম্পকে এবং ৩৭ শতাংশ বাইডেনকে সমর্থন দেওয়ার কথা জানায়।

ফেসবুকে লাইক দিন