কুড়িগ্রামের দরিদ্র মানুষগুলোর পাশে মাওলানা ফিরদাউস হাসান ও নওমুসলিম মুহাম্মাদ রাজ

ইমান২৪.কম: এ বছর করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে যেখানে দেশের অনেক ধনাঢ্য ব্যক্তিও কোরবানি থেকে বঞ্চিত, সেখানে কুড়িগ্রামের মানুষের কথা চিন্তাই করা যায় না। একেতো মানুষের কাছে টাকা পয়সা মজুদ নাই, অপরদিকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশের সকল অঞ্চলের চেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন কুড়িগ্রামের মানুষ।

এমন পরিস্থিতিতে কুড়িগ্রামের দরিদ্র পরিবারগুলোকে দুবেলা খাবার মত কোরবানির গোশত উপহার দেওয়ার জন্য এগিয়ে আসেন নওমুসলিম মুহাম্মাদ রাজ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মসজিদের খতিব মাওলানা ইব্রাহিম খলিল, সকলের প্রিয় ব্যক্তিত্ব ফয়সাল ভাই, অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম সহ আরো অনেকেই। তাদের এই মেহনত গুলোকে পুরোপুরি বাস্তবায়ন করেছেন কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী বাসস্ট্যান্ডে অবস্থিত সাবীলুর রাশাদ ক্যাডেট মাদরাসা এর সম্মানিত পরিচালক মাওলানা ফিরদাউস হাসান সাহেব।

মাওলানা ফিরদাউস হাসান সাহেবের মাধ্যমে উপরোল্লেখিত স্বপ্রণোদিত ব্যক্তিবর্গ কুড়িগ্রামের ৩টি স্পটে ৬টি গরু ও ৩টি খাসি কোরবানি করে এবং প্রায় ১২০০ মানুষের হাতে ৩৫০ গ্রাম করে কোরবানির গোশত উপহার দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। একটি বকরি এবং একটি গরু কফিলের চরে ঈদের দ্বিতীয় দিন জবাই করা হয়।

এবং ঐদিন নাগেশ্বরী শহরকেন্দ্রিক সাবীলুর রাশাদ ক্যাডেট মাদরাসায় দুটি গরু জবাই করে ৮৫ টি নব মুসলিম পরিবারের হাতে সমপরিমাণ করে দেওয়া হয়। ঈদের দ্বিতীয় দিন একই মাদ্রাসায় একটি গরু জবাই করে মাদ্রাসার দরিদ্র ছাত্রদের মাঝে (যাদের অভিভাবক কোরবানি দেওয়ার সুযোগ পায়নি/ সামর্থ্য রাখে না) বন্টন করে দেওয়া হয়।

ঈদের দিন দুটি গরু এবং দুটি খাসি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী থানাধীন হাসেম বাজার গ্রামে জবাই করে প্রায় ৬০০ লোকের মাঝে মাথাপিছু ৩৫০ গ্রাম হিসেব করে বন্টন করা হয়, যা উপস্থিত লোকজনকে খুবই আনন্দিত করে। এই গ্রামের কোরবানিতে বহিরাগত দুটি গ্রামকে সংযুক্ত করা হয়।

উল্লেখিত ৬ টি গরু এবং তিনটি বকরির ব্যবস্থা করেছেন, পর্যায়ক্রমে আসসুন্নাহ ফাউন্ডেশন, হাফেজ্জী হুজুর রহ. সেবা সংস্থা, মুফতি যুবায়ের সাহেব এবং নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ভাই।

আমাদের মুসলিম সমাজে যদি এভাবে ধারাবাহিকতায় সেবা সংস্থা গুলো কাজ করে যায় তাহলে অবশ্যই নতুন দিগন্তের চেহারা আগামী প্রজন্ম দেখবে বলে পূর্ণ বিশ্বাস। প্রত্যেকের উচিত উল্লেখিত ব্যক্তিদের মত করে সামাজিক উন্নতির জন্য এবং দরিদ্র পরিবারগুলোর সেবার জন্য এগিয়ে আসা।

ফেসবুকে লাইক দিন