ইজতেমা ময়দানের প্রস্তুতি চূড়ান্ত পর্যায়ে, থাকছে ১০ হাজারের বেশি নিরাপত্তা কর্মী

ইমান২৪.কম: টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমাবেশ বিশ্ব ইজতেমার প্যান্ডেল নির্মাণের কাজ পুরোদমে এগিয়ে চলছে। ১৪ ফেব্রুয়ারির আগেই মাঠের সকল কাজ সম্পন্ন হবে বলে জানিয়েছেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর।

তিনি জানান, আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি ফজরের নামাজের পরই আম বয়ানের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমা। অন্যান্য বছরের চেয়ে ইজতেমার নিরাপত্তা আরো বেশি জোরদার করা হয়েছে। এবারের ইজতেমার নিরাপত্তায় এবার ১০ হাজারের বেশি আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থাকবে।

তিনি বলেন, এবার ইজতেমা বিরতি না দিয়ে দুই পক্ষের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। প্রথম পক্ষ মাওলারা যোবায়ের অনুসারীদের আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে ১৬ ফেব্রুয়ারি আখেরি মোনাজাত শেষে রাতের ধ্যেবা ময়দান ছেড়ে দিতে হবে আর সাদ অনুসারীদের ১৭ ফেব্রুয়ারি শুরু করে ১৮ ফেব্রুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে এবারের বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি ঘটবে।

হুমায়ুন কবীর বলেন এবার যাতায়াতের সুবিদার্থে বাংলাদেশ রেলওয়ে ১৩৮ টি ট্রেনের ব্যবস্থা করবে এবং বিআরটিসি ৩০০ বাস সার্ভিস সেবা দিবে। মুসল্লিদের পয়ঃনিষ্কাশন এর জন্য ৮ হাজার পাকা টয়লেট ও ১ এক হাজার অস্থায়ী টয়লেটের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ওজু গোসলের জন্যও সুব্যবস্থা করা হয়েছে। অন্যান্য বারের চেয়ে এবছর সিসি ক্যামেরাও বৃদ্ধি করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক আরো বলেন, এ পর্যন্ত প্যান্ডেল তৈরির কাজ ৭০ শতাংশ হয়েছে। আগামি ১৪ ফেব্রূয়ারির আগেই সকল প্রস্তুতি শেষ হবে।

জানা গেছে ইজতেমা ময়দান প্রস্তুতির কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে। অতি অল্প সময়ের প্রস্তুতির মধ্যেই সোমবার রাত পর্যন্ত মাঠের বেশ কিছু প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্ন হয়ে গেছে। বাকি আছে চট লাগানো আর বালু ফেলার কিছু কাজ।

সোমবার রাতের মধ্যেই ইজতেমা মাঠের বাঁশের খুঁটি গাড়া, মাইক লাগানো, বিদ্যুৎ সংযোগ ও পানি ব্যবস্থাপনার কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

পর্যাপ্ত চটের অভাবে প্যান্ডেলের সব জায়গায় সোমবার পর্যন্ত চট লাগিয়ে শেষ করা যায়নি। বাকি রয়েছে টিনশেড মসজিদের পূর্ব দিকে বালু ফেলার কাজও।

গত কয়েক দিন ধরেই ঢাকার বিভিন্ন মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষক ও তাবলিগি সাথী ভাইয়েরা দিন ব্যাপি টঙ্গী ইজতেমা মাঠের কাজ করে যাচ্ছেন। মুরব্বিরা জানিয়েছেন, মঙ্গল-বুধবারও দলে দলে স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে ময়দানের খেদমতে নিয়োজিত হবেন তাবলিগের সাথীরা।

সোমবার রাতে খবর পাওয়া গেছে, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে মাঠের জন্য পর্যাপ্ত চট সরবরাহ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে চট উম্মুক্ত খুটিগুলোতে লাগানো হবে। অপরদিকে বালু ফেলার বিকল মেশিনের বদলে রাতের মধ্যেই নতুন মেশিন চলে আসার কথা রয়েছে। মেশিন চলে এলে মঙ্গলবার সকাল থেকে অসমান গর্তময় জায়গায় বালু ফেলার কাজও সম্পন্ন করা হবে।

সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাতের মধ্যেই সারা দেশ থেকে ইজতেমা ময়দানের নজমের সাথীদের চলে আসার কথা রয়েছে। তারা এসে খিত্তাওয়ারি খেদমত ও যিম্মাদারিতে যুক্ত হয়ে যাবেন। ধারণা করা হচ্ছে, বুধবার রাতের আগেই ইজতেমার ময়দান সবদিক থেকে অবস্থান ও ব্যবহারের উপযোগী হয়ে উঠবে।

আরও পড়ুন: ধর্ম যার যার উৎসব সবার : বললেন প্রধান বিচারপতি

কাদিয়ানীদের সরকারিভাবে অমুসলিম ঘোষণা করতে হবে: চরমোনাই পীর

স্কুলে ধর্ম শিক্ষক হিসেবে কওমি শিক্ষার্থীদের নিয়োগের দাবি সংসদে (ভিডিও)

‘রাস্তায় নামেন, রাস্তায় বসে মোনাজাত ধরেন’: বিএনপিকে ডা. জাফরুল্লাহ

ভোটে অনিয়ম, মামলা করবে বিএনপি : ভিডিও কনফারেন্সে তারেক রহমানের সিদ্ধান্ত

জোরপূর্বক ইয়াবা খাইয়ে ধর্ষণের অভিযোগ ২ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে

ফেসবুকে লাইক দিন