আলহামদুলিল্লাহ. অবশেষে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভেঙ্গে ফেলা মসজিদ পুনঃনির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে

নিজেস্ব প্রতিবেদন: আলহামদুলিল্লাহ,ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের দোয়া ও তৌহিদি জনতার ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভেঙ্গে ফেলা “শাইখুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক রহঃ মসজিদ” অস্থায়ীভাবে পুনঃনির্মাণ করা হয়েছে। ২০এপ্রিল (শুক্রবার) বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিসের কেন্দ্রীয় সমাজকল্যাণ সম্পাদক মাও: শরীফ হোসেনের ইমামতিতে জুমার নামাজের মধ্যদিয়ে মসজিদটি উদ্ভোধন করা হয়। কিছুদিনের মধ্যেই মসজিদটি স্থায়ীভাবে নির্মাণ করা হবে ইনশা-আল্লাহ।

এর আগে হেফাজতে ইসলাম কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি এই বিষয় নিয়ে কক্সবাজার জেলা প্রসাশকের সাথে জরুরি বৈঠক করে। বৈঠকে কক্সবাজার জেলা প্রসাশকের কাছে বিষয়টি সুন্দর সমাধানের লক্ষ্যে তুলে ধরলে তিনি বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে উখিয়া উপজেলার ইউএনওকে সুষ্ঠুভাবে সমাধান করে দেওয়ার নির্দেশ প্রদান করেন।

পরে হেফাজতের প্রতিনিধি দল ক্যাম্প ইনচার্জ ম্যাজিস্ট্রেট পাভেলের সাথে সাক্ষৎ করে। সাক্ষাতে প্রতিনিধি দলটি দাবি করে, কোন কালক্ষেপন না করে অনতিবিলম্বে মসজিদটি পুণঃ নির্মাণ করে দেওয়া হউক। অন্যথায় যে কোন পরিস্থিতির জন্য প্রসাশন দায়ী থাকবে।

ক্যাম্প ইনচার্জ ম্যাজিস্ট্রেট পাভেলের সাথে সাক্ষৎ সময় বলেন, আসল বিষয় হচ্ছে ক্যাম্পের মাষ্টার প্ল্যানে মসজিদের জমিটির উপর দিয়ে রাস্তা নির্মাণের প্ল্যান করা হয়। তাই মসজিদটি সরানোর প্রয়োজন পড়ে। মসজিদের জন্য পার্শ্ববর্তি আরেকটি জায়গা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয় এবং সরকারি খরচে পূননির্মাণ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মধুছড়ায় শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক রহ. এর নামে নির্মিত বিশাল মসজিদ কমপ্লেক্সটি সম্প্রতি কুতুপালং মধুরছড়া এলাকার ক্যাম্প ইনচার্জ ম্যাজিস্ট্রেট পাভেলের নেতৃত্বে সম্পূর্ণ ভেঙ্গে ফেলা হয়। ভাঙ্গার পূর্বে মসজিদ কর্তৃপক্ষকে কোন ধরনের নোটিশ কিংবা অবগত করা হয়নি। আকস্মিক এক দল শ্রমিক নিয়ে এসে পাভেল সাহেব নিজে দাঁড়িয়ে থেকে মসজিদটি সম্পূর্ণরূপে ভেঙ্গে ফেলে।

ফেসবুকে লাইক দিন