‘আমি ইসলামধর্ম গ্রহণ করেছি, আমি ভালো আছি, তোমরা চিন্তা করো না’

গফরগাঁওয়ে নিখোঁজ হওয়া হিন্দু কিশোরী মিতু রানী দাস (১৫) ইসলাম গ্রহণ করেছেন।

মিতু রানী তার নিজের বাড়িতে ফোন করে সান্ত্বনা দিয়ে জানিয়েছেন, ‘আমি ইসলাম গ্রহণ করেছি। ময়মনসিংহের একটি মাদরাসায় ইসলাম শিখতে এসেছি। আমি ভালো আছি, তোমরা চিন্তা করো না।’

মিতু গফরগাঁও উপজেলার যশরা গ্রামের বাসিন্দা। তার বাবার নাম রাখাল চন্দ্র দাস। এবার সে শিবগঞ্জ বিদাস উচ্চবিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেছে।

জানা যায়, গত ১৪ মে সকালে শিবগঞ্জ হুরমত উল্লাহ কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয় মিতু। বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর থেকে সে নিখোঁজ রয়েছে।

দুদিন অনেক খুজাখুজির পর মেয়েকে না পেয়ে তার মা বীণা রানী দাস ১৬ মে গফরগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

এরপর ওই রাতেই মিতু তার মোবাইল ফোন থেকে স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে তাদের সান্ত্বনা জানিয়ে বলে সে ভালো আছে।

মিতু বাড়িতে ফোন করার পর ময়মনসিংহের বিভিন্ন মাদরাসায় খোঁজ নেয় তার পরিবার। এমনকি যে নাম্বারে কল এসেছিল তা পুলিশকে জানায়। তবে মিতু কোথায় আছে তা এখনও বের করতে পারেনি তারা।

গফরগাঁও থানার ওসি আবদুল আহাদ জানান, নিখোঁজ হওয়া কিশোরী মিতু রানী দাসের সন্ধানে পুলিশ ও গোয়েন্দা বিভাগ একযোগে কাজ করছে।

আবদুল আহাদ জানান, মিতুর ব্যবহৃত দুটি মোবাইল ফোন ট্রাক করে তার অবস্থান জানার চেষ্টা করলেও পুলিশ ব্যর্থ হয়। কারণ দুটি ফোনই বর্তমানে বন্ধ রয়েছে।

তার পরও মিতুকে খুঁজে পাওয়ার জন্য পুলিশ ও গোয়েন্দা বিভাগ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানান ওসি আবদুল আহাদ খান।

আরও পরুনঃ ঘানার ফুটবল তারকা জাস্টিজ ব্লে এর ইসলাম গ্রহন

>প্রতিবন্ধকতা সত্বেও ইসলামের দিকে ঝুঁকছে চীনারা

>চুল-দাড়ি কেটে বাবা আমাকে পূজা করতে বাধ্য করেছিল, তবুও আমি ইসলামে অটল থেকেছি

ফেসবুকে লাইক দিন