আপনারা জেগেছেন আলহামদু লিল্লাহ, তবে খর গোশের ঘুম দিয়েননা

ইমান২৪.কম: কওমী ধারার ইসলামপন্থীরা ভারতের বিরুদ্ধে মাঠে শক্তি প্রদর্শন করেছেন, হাটহাজারীতে হেফাজতের মফস্বল সমাবেশ থেকে রাজধানীতে চরমোনাই নেতৃত্বাধীন ইসলামী আন্দোলনের মহাসমাবেশ পর্যন্ত।

ভারতীয় আধিপত্যের বিপরীতে নিস্তব্ধ এক জাতীয় সুনসান নীরবতার বিরাজমান সময়ে দেরীতে হলেও এটা খরার মাঝে এক ফসলা বৃষ্টির মত আশার আলো জাগিয়েছে। পৌত্তলিক সংস্কৃতির গোলাম দালাল মিডিয়ার এসব নিয়ে আকর্ষণতো নেই, বরং তারা হয়তো উদ্বেগে আছে।

অতীতকালে ভারতীয় আধিপত্যবাদ বিরোধী আন্দোলনগুলোর নজির আমাদের মনে আছে। এগুলো সাময়িক আনুষ্ঠানিকতার গতানুগতিকতায় তলিয়ে গেছে। জামাআতের মেরুদণ্ড দুর্বল করে দিতে পারলেও বাংলাদেশে ইসলামপন্থার অপরাপর ভার্সন গুলোর উত্থান ঠেকাতে না পারায় ইন্ডিয়া ডকট্রিন চিন্তিত।

তাই তারা বসে নাই। আমাদের অসুস্থ বড় হুজুর আমীরে হেফাজত তাঁর দূরদর্শী সেই আসল কথাটা বলেই দিয়েছেন। নেতাকর্মীরা এটা নিয়ে আর কোন বিশ্লেষণে যাননি। ইসলামি শাসনতন্ত্র আন্দোলনের সমর্থকরাও তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলে অন্যান্য কর্মসূচিতে মশগুল হয়ে যাবেন। ভারত কিন্তু ছাড়বেনা তাদের সাম্প্রদায়িক আগ্রাসন আর রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক আধিপত্যের নির্লজ্জ মিশন। এদেশের ইসলাম নিয়ে ইন্ডিয়া ডক্ট্রিনের জিরোটলারেন্সের নীতি আর পরিকল্পনা রাখঢাক ছাড়াই চলছে।

ভাই সব! আপনরা জেগেছেন আলহামদুলিল্লাহ! তবে খরগোশের ঘুম দিয়েননা। দিল্লি হুনুজ দূরাস্ত। মায়ানমারের রোহিঙ্গা নির্মূলের প্রতিবাদে আমাদের গগনবিদারী তর্জনগর্জনের কোন ফলোআপ আছে? এটা অন্তঃসারশূন্য শ্লোগানের মধ্য দিয়ে যাওয়া আমাদের সমকালীন ব্যর্থতার সবচেয়ে ভয়ানক উদাহরণ! গণসচেতনতার লক্ষ্যে রাজনৈতিক কর্মসূচির জুড়ি নেই।

কিন্তু এটা পরিকল্পনাবহির্ভূত কসরত হলে ফলাফল বিপজ্জনক। চিৎকার দিয়ে শত্রুকে সতর্ক করে দিয়ে নিজে অন্যমনস্ক হয়ে পড়ার মত। শুধু বাংলাদেশ নিয়ে ভাবার সময় আর রাখা হয়নি। এই পুরো অঞ্চলের ভূতাত্ত্বিক রাজনীতির পুরো গেইম মাথায় রাখতে আপনি বাধ্য। আপনি বুঝুন আর না বুঝুন। সূত্র: ইনসাফ২৪

ইমান২৪/এ/আর

ফেসবুকে লাইক দিন