আগামী ৫ নভেম্বর ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেবেন কাদের সিদ্দিকী

ইমান২৪.কম: আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে ড. কামাল হেসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেবেন কিনা সে সিদ্ধান্ত জানাতে আরও দুইদিন সময় নিয়েছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। আগামী ৫ নভেম্বর এই বিষয়ে তিনি আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবেন বলে জানিয়েছেন। শনিবার (৩ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় এ কথা জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘আমরা আগামী ৫ নভেম্বর দলগতভাবে সিদ্ধান্ত জানাব। যদি ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে থাকি তবে জান দিয়ে কাজ করব।’ ড. কামালের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্টের আন্দোলনে দেশে বিপ্লব সৃষ্টি হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিই বা না দিই, ত‌বে ড. কামাল হোসেন জি‌তে গে‌ছেন, যে‌দিন সংলা‌পে ব‌সে‌ছেন।’ ড. কামাল সারা দেশের নেতা উল্লেখ করে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেন কিছুদিন আগেও হয়তো কোথাও নির্বাচন করলে বিজয়ী হতে পারতেন না।

কিন্তু, আজ তিনি সারা দেশের নেতা। টুঙ্গিপাড়ায় দাঁড়ালেও তিনি শেখ হাসিনাকে পরাজিত করে নির্বাচিত হবেন।’ এদিকে, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভায় উপস্থিত হননি বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও যুক্তফ্রন্ট নেতা একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। জানা গেছে, ড. কামালের মুখোমুখি হতে আপত্তি জানিয়ে অনুষ্ঠানে আসেননি বি. চৌধুরী। এ বিষয়ে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘সভায় বি. চৌধুরীর থাকার কথা ছিল। শুক্রবার তার সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি তখনও বলেছিলেন আসবেন।

কিন্তু আজ যখন তিনি শুনলেন যে এই সভায় সভাপতিত্ব করছেন ড. কামাল হোসেন, তখন তিনি না আসার সিদ্ধান্ত নেন।’ আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, কার্যকরি সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, জেএসডি সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ প্রমুখ।

আরও পড়ুন: চট্টগ্রামে শিবিরের কার্যালয়ে বিস্ফোরণ; ঘটনাস্থল ঘিরে রেখেছে পুলিশ

গোপন সুড়ঙ্গ পথ দিয়ে পালালেন শিবিরের নেতা-কর্মীরা

ফেসবুকে লাইক দিন