আইডিয়াল স্কুলে ইসলামবিদ্বেষী ড্রেসকোড বাতিলের দাবি আল্লামা কাসেমী’র

ইমান২৪.কম: আইডিয়াল স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীদের ড্রেসকোড থেকে মেয়েদের স্কার্ফ ও ছেলেদের টুপি ব্যবহারের পূর্বের বিধি পরিবর্তন করায় প্রতিবাদ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।

(১৮ জানুয়ারী) শনিবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, ঐতিহ্যবাহী এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে ইসলামী ভাবাদর্শ ও সংস্কৃতি চর্চার জন্য সর্বত্র বেশ সুনাম ছিল।

এতদিন বিদ্যালয়ের ছাত্রদের মাথায় নিয়মিত টুপি থাকতো এবং মেয়ে শিক্ষার্থীদের গায়ে ওড়না জড়িয়ে আর মাথায় স্কার্ফ বেঁধে স্কুলে আসতো। শিক্ষকদের অনেকে পাঞ্জাবী-টুপি ব্যবহার করতেন।

ধর্মভীরু অভিভাবকগণও এ কারণেই সন্তানদেরকে এখানে স্বস্তি নিয়ে ভর্তি করাতেন। আল্লামা কাসেমী বলেন, চলতি শিক্ষাবর্ষে স্কুল কর্তৃপক্ষ হঠাৎ ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের ইচ্ছার বিপরীতে নতুন ড্রেসকোড জারি করেছে। যেখানে ছাত্রীদের জন্য হিজাবের বাধ্যবাধকতা তুলে দিয়েছে। ওড়না ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

ছাত্রদের জন্য টুপি ব্যবহারের যুগ যুগ ধরে চলে আসা বাধ্যবাধকতাও তুলে নিয়েছে। শিক্ষকদের পাঞ্জাবী পরায় নিরুৎসাহিত করেছে। সব দিক থেকেই ইসলামী সংস্কৃতি ও জীবনাচারের উপর বড় রকমের আঘাত ছাড়া এটা কিছু নয়। তিনি বলেন, দৃশ্যত- ইসলামবিদ্বেষ থেকেই কর্তৃপক্ষ এমন সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিয়েছে।

ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের ইচ্ছার বিপরীতে না হয় এমনটা করার কথা ছিল না। আমরা স্কুল কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে ইসলামবিদ্বেষী ড্রেসকোড বাতিল করে পূর্বোক্ত নিয়ম বহাল রাখার দাবি জানাচ্ছি।

জমিয়ত মহাসচিব আরও বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী ও কিশোর, যুবকদের মাঝে নীতি-নৈতিকতার অধঃপতন, চরিত্রবিধ্বংসী ক্রিয়াকলাপ এবং নারী নিগ্রহ, নিপীড়ন, যৌনহয়রানী ও ধর্ষণ দেশব্যাপী দিন-দিন ভয়াবহ আকারে বেড়ে চলেছে।

এমন পরিস্থিতি থেকে জাতিকে উত্তরণে যেখানে পর্দা ও ধর্মীয় অনুশাসন চর্চা বৃদ্ধির দাবি সর্বত্র জোরালো হচ্ছে, সেখানে আইডিয়াল স্কুল কর্তৃপক্ষের ধর্মবিমুখী এই সিদ্ধান্ত খুবই হতাশাজনক ও আত্মবিধ্বংসী।

কোনভাবেই এই সিদ্ধান্ত সুস্থসংস্কৃতি চর্চার সহায়ক তো নয়ই, বরং ধর্মভীরু পরিবারের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে ইসলামবিমুখী ও ইসলামবিদ্বেষী মনোভাব তৈরিতে সহায়ক হবে।

ফেসবুকে লাইক দিন